Textile

Textile Engineering

টেক্সটাইল পন্য রপ্তানি বাংলাদেশের প্রধান বৈদেশিক মূদ্রা অর্জনের খাত।  বস্ত্র মন্ত্রনালয় থেকে প্রকাশিত এক জরিপে জানা যায়, দেশে বস্ত্র ও রপ্তানী মুখী পোশাক (গার্মেন্টস) শিল্পে টেক্সটাইল ডিগ্রীধারী ও ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারের প্রয়োজন ৩০,০০০ জন, সেখানে কর্মরত আছে মাত্র ২৫০০ জন । বস্ত্র অধিদপ্তরের প্রকাশিত প্রদিবেদন মোতাবেক এখনও বাংলাদেশে সরবারহ কৃত দক্ষ জনবলের পাশাপাশি ২০২১ সাল পর্যন্ত ব্যাপক ঘাটতি রয়েছে। দেশের সিংহভাগ কারখানা টেক্সটাইল ও সংশ্লিষ্ট, সুতরাং সেসকল সেক্টরে টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ থেকে পাশ করে কাজ করার অপার সম্ভাবনা রয়েছে।

কর্মক্ষেত্রঃ

দেশের বস্ত্র শিল্প এই বিভাগের কর্মক্ষেত্রে প্রধান স্থান। দেশের টেক্সটাইল, জুট, স্পিনিং, ডাইং, গার্মেন্টস কল কারখানাতে কোয়ালিটি কন্ট্রোলার, প্রোডাক্শন অফিসার, প্যাটার্ন অফিসার থেকে শুরু করে বিভিন্ন পদে গার্মেন্টস ডিজাইন এন্ড প্যাটার্ন মেকিং বিভাগ থেকে পাশকৃত শিক্ষার্থীরা কাজ করার সুযোগ পাবে। উপরের চিত্রে দেখা যায় যে দেশে কি পরিমান জব এই বিভাগ থেকে পাশ করা শিক্ষার্থীদের জন্য খালি আছে। এছাড়া রয়েছে বস্ত্র অধিপ্তরে বিভিন্ন সরকারি চাকুরীর সুযোগ।

কেন ম্যানগ্রোভ ইনষ্টিটিউটের টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে ভর্তি হবেন?

ম্যানগ্রোভ ইনষ্টিটিউটের এই বিভাগ থেকে পাশকৃত শিক্ষার্থীদের চাকুরী পাবার হার ৯৮%। টেক্সটাইল বিভাগের জন্য রয়েছে সুদক্ষ শিক্ষক মন্ডলী ও ল্যাব। এছাড়া এখানকার শিক্ষার্থীদের প্রতি সেমিষ্টারে একটি করে টেক্সটাইল সংশ্লিষ্ট ইন্ডাষ্ট্রিতে ভিজিটে যাওয়া বাধ্যতামুলক ফলে হেভি ইন্ডাষ্ট্রিয়াল টেক্সটাইল মেশিনারিজ সম্পর্কে শিক্ষার্থীরা বাস্তবে জানতে পারে। বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে একমাত্র দেশের মধ্যে ম্যানগ্রোভ ইনষ্টিটিউটের অভ্যন্তরে রয়েছে একটি গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী যেখান থেকে শিক্ষার্থীরা অন্য যে কোন প্রতিষ্ঠানের তুলনায় একটি বাস্তব গার্মেন্টস ফ্যাক্টরী সম্পর্কে এবং সরাসরি প্রোডাকশন সিস্টেম, প্যাটার্ন  তৈরি, কোয়ালিটি কন্ট্রোল সম্পর্কে ভাল ধারনা পেতে পারে। এখানে রয়েছে এই বিভাগের জন্য সুদক্ষ শিক্ষক মন্ডলী। এছাড়া কম্পিউটার এইডেড গার্মেন্টস প্যাটার্ন ডিজাইনিং করতে রয়েছে সুসজ্জিত কম্পিউটার ল্যাব। এখান থেকে পাশ করা শিক্ষার্থীরা দেশের নামকরা বিশ্ববিদ্যালয় “ডুয়েট” ও “বঙ্গবন্ধু টেক্সটাইল ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজে” ভর্তি পরীক্ষায় চান্স পেয়ে বিএসসি ইঞ্জিনিয়ারিং কোর্সে অধ্যায়ন করছে।

ভর্তির যোগ্যতাঃ

যে কোন বিভাগ থেকে এসএসসি বা সমমান পরীক্ষা ন্যূনতম ২.৫ জিপিএ সহ উত্তীর্ণ।

টিউশন ফিঃ

ভর্তি ফি: ৫০০০/- + ৩০০০/-

মাসিক বেতন: ১২০০-১৮০০/- (মেয়ে শিক্ষার্থীদের মাসে বেতন ৪০০/-)

সেমিষ্টার ফি: ৩০০০/-